নৌকাডুবিতে একজনের লাশ পাওয়া গেছে। ৩৯ জন বাংলাদেশি এখনও নিখোঁজ। ১৪ জন উদ্ধার হয়েছে। তাদের মধ্যে চার জনের অবস্থা গুরুতর।
পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ. কে. আব্দুল মোমেন মঙ্গলবার (১৫ মে) দুপুরে তাঁর কার্যালয়ে এসব তথ্য দেন। তিনি বলেন, ‘তিউনিসিয়ার উপকূলে নৌকাডুবিতে নিহত ও উদ্ধার পাওয়া বাংলাদেশিদের সন্ধানে লিবিয়ায় বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত একটি তালিকা করে পাঠিয়েছেন।’নিখোঁজদের মধ্যে কমপক্ষে ২২ জন বৃহত্তর সিলেটের বলেও জানান পররাষ্ট্রমন্ত্রী আব্দুল মোমেন।

তবে দূতাবাস জানিয়েছে, তারা উদ্ধার পাওয়া ব্যক্তিদের সঙ্গে কথা বলে এ তালিকা তৈরি করেছে। এখনও সঠিক তথ্য তারা যাচাই করতে পারেনি।
অন্যদিকে, ১৩০ জন যাত্রী নিয়ে একই জলপথে পাড়ি দেওয়া নৌযানটি নিরাপদে ইতালি উপকূলে পৌঁছেছে বলে পররাষ্ট্রমন্ত্রী জানান। তিনি বলেন, ‘সেখানেও ৭০ জন বাংলাদেশি নাগরিক ছিল।’
বৃহস্পতিবার (৯ মে) গভীর রাতে লিবিয়ার উপকূল থেকে ৭৫ জন অভিবাসী একটি বড় নৌকায় করে ইতালির উদ্দেশে রওনা হয়। গভীর সাগরে তাদের বড় নৌকাটি থেকে অপেক্ষাকৃত ছোট একটি নৌকায় তোলা হলে কিছুক্ষণের মধ্যে সেটি ডুবে যায়।
শনিবার (১১ মে) তিউনিসিয়ার জেলেরা ১৬ জনকে উদ্ধার করে সকালে জারযিজ শহরের তীরে নিয়ে আসেন। উদ্ধার হওয়া অভিবাসীদের মধ্যে ১৪ জন বাংলাদেশি। তারা জানান, সাগরের ঠাণ্ডা পানিতে তারা প্রায় আট ঘণ্টা ভেসে ছিলেন।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here