ব্রুনাইয়ে তিনদিনের রাষ্ট্রীয় সফর শেষে দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আজ মঙ্গলবার (২৩ এপ্রিল) সন্ধ্যা সাতটা ২৩ মিনিটে প্রধানমন্ত্রী ও তার সফরসঙ্গীদের বহনকারী বাংলাদেশ বিমানের একটি বিশেষ ফ্লাইট হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে।

বিমানবন্দরের একটি সূত্র এ তথ্য জানিয়েছে।

এর আগে তাদের বহনকারী ফ্লাইটটি ব্রুনাইর স্থানীয় সময় ৫টা ১৫ মিনিটে বন্দর সেরি বেগাওয়ানের ব্রুনাই আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ত্যাগ করে।

ব্রুনাইর প্রাথমিক সম্পদ এবং পর্যটন বিষয়কমন্ত্রী দাতো সেরি সেথিয়া আওয়াঙ্গ হাজি আলি বিন হাজি আপং এবং ব্রনাইয়ে বাংলাদেশের হাইকমিশনার এয়ার ভাইস মার্শাল (অব.) মাহমুদ হুসেইন বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রীকে বিদায় জানান। বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রীকে গার্ড অব অনার প্রদান করা হয়।

ব্রুনাই সফরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ব্রুনাইয়ের সুলতান হাসানাল বলকিয়ার মধ্যে দ্বিপক্ষীয় বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। হৃদ্যতাপূর্ণ এ বৈঠক শেষে দুই দেশের মধ্যে কৃষি, মৎস্য, পশুসম্পদ, ক্রীড়া ও সংস্কৃতি এবং এলএনজি সরবরাহ সংক্রান্ত ৭টি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়।

সাতটি চুক্তির মধ্যে ছয়টি সমঝোতা স্মারক (এমওইউ) এবং একটি বিনিময় নোট। এগুলো হচ্ছে, কৃষি ক্ষেত্রে বৈজ্ঞানিক ও কারিগরি সহযোগিতার বিষয়ে সমঝোতা স্মারক (এমওইউ), মৎস্য ক্ষেত্রে সহযোগিতার সমঝোতা স্মারক, পশুসম্পদ ক্ষেত্রে সহযোগিতার সমঝোতা স্মারক, সাংস্কৃতিক ও শিল্প সহযোগিতা সম্পর্কিত সমঝোতা স্মারক, যুব ও ক্রীড়া ক্ষেত্রে সহযোগিতার সমঝোতা স্মারক, এলএনজি সরবরাহে সহযোগিতার ক্ষেত্র সম্পর্কিত সমঝোতা স্মারক এবং কূটনৈতিক ও অফিসিয়াল পাসপোর্ট হোল্ডারদের জন্য ভিসার ছাড় সংক্রান্ত বিনিময় নোট।

এ বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্ব এশীয় অঞ্চলে ইসলামি সহযোগিতা সংস্থার (ওআইসি) সদস্য পাঁচটি দেশের সমন্বয়ে আঞ্চলিক অর্থনৈতিক ফোরাম গঠনের প্রস্তাব দিয়েছেন।

সাংবাদিকদের ব্রিফিংকালে পররাষ্ট্র সচিব মো. শহীদুল হক বলেন, প্রস্তাবিত আঞ্চলিক অর্থনৈতিক ফোরাম দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া কো-অপারেশন অর্গানাইজেশন (সিয়াকো)-এর সদস্য হবে দক্ষিণ এশিয়া থেকে বাংলাদেশ ও মালদ্বীপ এবং দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া থেকে ইন্দোনেশিয়া, মালয়েশিয়া ও ব্রুনাই।

এছাড়াও তিনদিনের সফরে প্রধানমন্ত্রী ব্রুনাইয়ের সুলতান এবং রাজপরিবারের সদস্যদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। এ সময় রাজপরিবারের প্রথা ভেঙে প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানাতে প্রাসাদের করিডোরে উপস্থিত হন সুলতান হাসানাল বলকিয়া। তিনি বাংলাদেশ-ব্রুনাই বিজনেস ফোরামের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানসহ বেশ কিছু কর্মসূচিতে যোগ দেন। তিনি ব্রুনাইয়ের সুলতান বলকিয়া নির্মিত জামে আসর মসজিদ পরিদর্শন করেন। এছাড়াও আজ সকালে ব্রুনাইয়ে বাংলাদেশ মিশনের চ্যান্সেরি ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন প্রধানমন্ত্রী। ১৮ মাসের মধ্যে এ ভবন নির্মাণ শেষ হলে প্রধানমন্ত্রী ভবনটি উদ্বোধনের জন্য আবারও ব্রুনাই যাওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here