নিজস্ব প্রতিবেদক : আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, আগামী জাতীয় নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বিএনপি অহিংস আন্দোলন করলে স্বাগত জানাবো। সহিংস আন্দোলন করলে জনগণকে সঙ্গে নিয়ে প্রতিরোধ করব।

বুধবার রাজধানীতে নগর ভবনে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ডিটিসি সভাকক্ষে ঢাকা পরিবহন সমন্নয় কর্তৃপক্ষের পরিচালনা পর্ষদের ১১তম সভা শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘জাতীয় সংসদের চলতি অধিবেশন আগামী ২০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত চলবে। প্রস্তাবিত সড়ক পরিবহন আইনটি ১৬ সেপ্টেম্বর সংসদে উপস্থাপন করা হবে। এরপর তা স্থায়ী কমিটিতে যাবে এবং আগামী অক্টোবর মাসে সংসদের শেষ অধিবেশনে আইনটি পাশ হবে।’

তিনি বলেন, ‘সংসদের চলতি অধিবেশনের পর আরেকটি অধিবেশন বসবে। এরপর সংসদের আর কোন অধিবেশন বসবে না। জাতীয় নির্বাচনের তফশিল ঘোষণা হওয়ার পর মন্ত্রীরা শুধু রুটিন ওয়ার্ক করবেন এবং এমপিদের কোন দায়িত্ব থাকবে না। বিশ্বের অন্যান্য সংসদীয় রীতির দেশের মতই বাংলাদেশে আগামী জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। সংবিধানের বাইরে যাওয়া যাবে না।’

জাতিসংঘের মহাসচিবের আমন্ত্রণে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের যুক্তরাষ্ট্রে যাওয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে কাদের বলেন, ‘জাতিসংঘ আন্ত:রাষ্ট্রিক সর্বোচ্চ ফোরাম। সেখানে কারো আমন্ত্রণে মির্জা ফখরুল যেতেই পারেন। তবে রাষ্ট্রের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে আমাদের সিদ্ধান্ত আমরাই নেব। কোন ধরনের চাপের কাছে, সংবিধান বহির্ভূত কোন চাপের কাছে আমরা নতি স্বীকার করব না।

সভায় গৃহীত সিদ্ধান্তের বিষয়ে সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘রাজধানীর পূর্বাঞ্চল এলাকায় বাস টার্মিনাল নির্মানের জন্য রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (রাজউক) সাত একর জমি বরাদ্দ দিয়েছে। দ্রুত এ বাস টার্মিনাল নির্মানের কাজ শেষ হবে।’ গাজীপুরের টঙ্গী থেকে জয়দেবপুর মহাসড়কে জনগণের দূর্ভোগ না বাড়ে সেজন্য তিনি আগামী জাতীয় নির্বাচনের আগ পর্যন্ত খোড়াখুড়ি বন্ধ রাখার নির্দেশ দেন। সভায় সাংসদ ডা. এনামুর রহমান, সাংসদ নুরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুন, সাংসদ সাগুফতা ইয়াসমিন ও সমম্বয় কর্তৃপক্ষের পদস্থ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here